ই-কমার্স কি এবং ই-কমার্সের সুবিধাগুলো কি কি?

By | February 8, 2021

আজ আমরা আধুনিক বিশ্বের একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় ই-কমার্স সম্পর্কে জানবো। সহজভাবে ইকমার্স, যা ইলেকট্রনিক বাণিজ্য বা ইন্টারনেট বাণিজ্য নামেও পরিচিত, ঘরে বসে ইন্টারনেট ব্যবহার করে পণ্য বা পরিষেবাদি ক্রয়-বিক্রয়, এবং এই লেনদেনগুলি কার্যকর করার জন্য অর্থের আদান-প্রদানকে বোঝায়। ই-কমার্সের মাধ্যমে ফিজিক্যাল ও ভার্চুয়াল দুই ধরণের পণ্যই ক্রয়-বিক্রয় করা যায়।

ইকমার্সের ইতিহাস

 ১১ ই আগস্ট, ১৯৯৪ সালে একজন আমেরিকান সিডি বিক্রেতা, ওয়েব সাইট ব্যবহার করে তার তিন বন্ধুর কাছে ব্যান্ড স্টিংয়ের মাধ্যমে একটি সিডি বিক্রি করেছিল। ওয়ার্ল্ড ওয়াইড ওয়েব “বা” ইকমার্স “এর মাধ্যমে অনলাইনে পন্য ক্রয়-বিক্রির এটি প্রথম উদাহরণ ।

সেই থেকে, ই-কমার্স অনলাইনে পণ্য খুচরা ও পাইকারি ক্রয়-বিক্রয়ের মাধ্যমকে অনেক সহজ করে দিয়েছে, এভাবেই ই-কমার্স একটি নির্ভরযোগ্য বাণিজ্যিক মাধ্যম হিসেবে গড়ে উঠেছে। ছোট ছোট ব্যবসা প্রতিষ্ঠান এবং বৃহত্তর কর্পোরেশনগুলি, সকলেই ইকমার্স থেকে উপকৃত হয়েছে, যার ফলে তাদের পণ্য এবং পরিষেবাগুলি এমন একটি স্কেলে বিক্রয় করতে সক্ষম হয়েছে যা  অফলাইন/ঐতিহ্যগত মাধ্যমে সম্ভব ছিল না।

ই-কমার্সের ধরণগুলির প্রকারভেদ:

 সাধারণত চারটি প্রধান ধরণের ই-কমার্স মডেল রয়েছে যা গ্রাহক এবং বিক্রেতার মধ্যে ঘটে যাওয়া প্রতিটি লেনদেনের বর্ণনা দিতে পারে।

১| ব্যবসায়িক থেকে গ্রাহক

এ ক্ষেত্রে কোনও ব্যবসায়িক পৃথক পৃথক গ্রাহকের কাছে পণ্য বা পরিষেবা বিক্রয় করে থাকে (যেমন আপনি একটি অনলাইন খুচরা বিক্রেতা থেকে একজোড়া জুতা কিনলেন))

২|ব্যবসায়িক থেকে ব্যবসায়িক

এ ক্ষেত্রে একজন বড় ব্যবসায়ী ছোট ছোট ব্যবসায়ীদের নিকট পণ্য বিক্রয় করে থাকে। (যেমন কোন খুচরা বিক্রেতা বিক্রির জন্য কোন পণ্য ক্রয় করেন)

৩| গ্রাহক থেকে গ্রাহক

 যখন কোনও গ্রাহক অন্য কোনও গ্রাহকের কাছে কোনও পণ্য বা পরিষেবা বিক্রি করে থাকে(যেমন আপনি আপনার পুরানো আসবাবপত্র অন্য গ্রাহকের কাছে বিক্রি করেন)।

৪| গ্রাহক থেকে ব্যবসায়ী

যখন কোনও ভোক্তা তাদের নিজস্ব পণ্য বা পরিষেবাগুলি কোনও ব্যবসাযিক সংস্থার কাছে বিক্রি করে

 

ই-কমার্সের উদাহরণ

বর্তমানে মার্কেটে বিভিন্ন ধরণের ই-কমার্স প্রচলিত রয়েছে। নিচে উল্লেখযোগ্য কিছু নিয়ে আলোচনা করা হলো।

১| খুচরা:

কোনও মধ্যস্থতাকারী ছাড়াই সরাসরি কোনও গ্রাহকের কাছে পণ্য বিক্রয়।

২| পাইকারী:

বেশিরভাগ ক্ষেত্রে খুচরা বিক্রেতারা বড় বিক্রয়কারীদের কাছ থেকে বিত্রির উদ্দেশ্যে পন্য ক্রয় করে থাকে, যা পরবর্তীতে সরাসরি গ্রাহকদের কাছে বিক্রি করে।

৩| ড্রপশিপিং

এই প্রক্রিয়ায় কোন পণ্য বা সেবা কোম্পানী থেকে একটি তৃতীয় পক্ষের মাধ্যমে সরাসরি গ্রাহকের কাছে প্রেরণ করা হয়।

৪| ক্রাউডফান্ডিং:

কোন বিশ্বাসযোগ্য কোম্পানি তাদের পন্য বাজারে আনার আগেই ভোক্তাদের কাছ থেকে অর্থ সংগ্রহ করে থাকে।

 

ই-কমার্সের সুবিধাগুলো বিস্তারিতভাবে নিচে আলোচনা করা হলো

১| দ্রুত ক্রয় প্রক্রিয়া

গ্রাহকরা তাদের চাহিদা অনুযায়ী সঠিক পণ্য খুব সহজেই খোজে পেতে পারেন এবং তার জন্য কম সময় ব্যয় করতে হয়। তারা একসাথে অনেকগুলি আইটেমের মধ্য থেকে তাদের কাংঙ্খিত পণ্য সহজেই ব্রাউজ করতে পারে এবং যা পছন্দ তা কিনতে পারেন।

২|স্টোর এবং পণ্য তালিকা তৈরি

গ্রাহকরা যখন কোনও আইটেম অনুসন্ধান করেন একটি পণ্য তালিকার মাধ্যমে তখন তা দেখতে পান। এটি ইকমার্সের একটি সুবিধা যা বিক্রেতার জন্য অনেক গুরুত্বপূর্ন।  অনলাইন ব্যবসায় প্লাস পয়েন্ট হলো আপনি আপনার পণ্য তৈরি করার পরে তাদের তালিকা তৈরি করতে পারেন। একটি তালিকা তৈরি করতে খুব কম সময় লাগে, আপনার প্রয়োজন অনুযায়ী পণ্যের নাম বা কোডগুলি EAN, UPC, ISBN বা ASIN এর মতো করে পণ্যের তালিকা তৈরি করতে পারেন।

পণ্যের তালিকাতে ‍আপনি চিত্র, একটি বিবরণ, পণ্য বিভাগ, দাম, শিপিং ফি এবং বিতরণ তারিখ যুক্ত করতে পারেন। সুতরাং, তালিকার মাধ্যমে মাত্র একটি ধাপে আপনি গ্রাহককে পণ্যটি সম্পর্কে অনেকগুলি তথ্য বলতে পারবেন।

তালিকাটি আপনার প্রয়োজন অনুযায়ী কাস্টমাইজ করতে পারবেন। কাস্টমাইজেশনের উপর আপনার পুরো নিয়ন্ত্রণ থাকবে।

৩|ব্যয় হ্রাস

ই-কমার্সের একটি গুরুত্বপূর্ণ সুবধা হলো এটি আপনার ব্যবসার ক্ষেত্রে তুলনামূলক অনেক ব্যয় হ্রাস করবে। ফিজিক্যাল স্টোরের ক্ষেত্রে অনেক কর্মচারির প্রয়োজন হয় এবং তাদের প্রচুর অর্থ দিতে হয়। এছাড়াও ভাড়া, মেরামত, স্টোর ডিজাইন, ইনভেন্টরি ইত্যাদির মতো অতিরিক্ত ব্যয় বহন করতে হতে পারে অনেক ক্ষেত্রে।

৪|গ্রাহকদের জন্য সহজলভ্যতা

আপনার জন্য ই-কমার্সের একটি গুরুত্বপূর্ণ সুবিধা হলো আপনি গ্রাহকদের চাহিদা সরবরাহ করতে পারেন। এবং উক্ত ডেটা ব্যবহার করে আপনার পণ্য বা পরিষেবাগুলি 24×7 গ্রাহকদের অফার করতে পারেন। এর ফলে গ্রাহক আপনার পণ্য বা সেবা  যে কোনও জায়গা থেকে ও যে কোনও সময়ে অর্ডার করতে পারেন।

গ্রাহকরা সর্বদা আপনার ই-কমার্স প্লাটফর্মের সাথে যুক্ত থাকতে পারেন – আপনি পূর্বে তাদের যে সুবিধা ‍দিয়েছেন তার কারণে তারা অনলাইনে আপনার পণ্যটি পুনরায় ক্রয়ের জন্য ফিরে আসতে পারে। এই সুযোগগুলির মধ্যে ফ্রি শিপিং (সাধারণত ন্যূনতম কার্টের মূল্যে), এক্সপ্রেস অর্ডার ডেলিভারি, ডিল এবং ছাড়, সাবস্ক্রিপশন সুবিধা অন্তর্ভুক্ত করতে পারে

৫|সীমাবদ্ধতা নেই

একটি ফিজিক্যাল স্টোরের ক্ষেত্রে একজন বিক্রেতা কেবলমাত্র নির্দিষ্ট সংখ্যক ক্রেতার কাছে পৌঁছাতে সক্ষম হয়। তারা নির্দিষ্ট দূরত্বের গ্রাহকদের নিকট পণ্য পৌঁছে দিতে পারে । কিন্তু ই-কমার্সের ক্ষেত্রে এ ধরনের কোন সিমাবদ্ধতা নেই। শুধুমাত্র ই-কমার্সের জন্যই নিজের দেশের গন্ডি পেরিয়ে পুরো বিশ্বব্যাপি পণ্য বা সেবা বিক্রি করা সম্ভব হয়েছে।

৬|বিভিন্ন পেমেন্ট মেথড

ই-কমার্স মার্কেটপ্লেসগুলি একাধিক অর্থপ্রদানের মেথডগুলোকে অনুমতি দেয় যার মধ্যে ইউপিআই, নগদ অন ডেলিভারি, কার্ড অন ডেলিভারি, নেট ব্যাংকিং, ক্রেডিট বা ডেবিট কার্ডের ইএমআই এবং পে-পরে ক্রেডিট সুবিধা রয়েছে। বিভিন্ন ধরনের পেমেন্ট মেথড থাকায় গ্রাহকদের পেমেন্ট সক্রান্ত বিষয় নিয়ে ঝামেলা পোহাতে হয় না।

৭|গ্রাহকদের ডেটা ট্র্যাকিং

এটি একটি বিশাল সুবিধা ই-কমার্সের জন্য। কখনও কখনও কোন ক্রেতা চেকআউট পৃষ্ঠায় পৌঁছায় তবে ক্রয়টি সম্পন্ন করে না। ডেটা ট্র্যাকিং এর মাধ্যমে আপনি ক্রয় শেষ করার জন্য তাদেরকে ফোন বার্তা, ইমেইল এবং স্যোসাল ‍মিডিয়ার  মাধ্যমে গ্রাহকদের অবহিত করতে পারেন। কিন্তু কোন ফিজিক্যাল স্টোরের ক্ষেত্রে আপনি এ ধরনের কোন সুবিধা পাবেন না।

আমাদের ই কমার্স ওয়েবসাইট সার্ভিস দেখুন

আরো পড়ুন:

Best Web Development Company In Bangladesh

বাংলাদেশে ই-কমার্স ব্যবসা শুরুর গাইডলাইন

How To Start Ecommerce Business in Bangladesh

অনলাইনে ব্যবসার প্রসার ঘাটাতে সেরা কৌশল | অনলাইনে ব্যবসা করার নিয়ম

ইন্টারনেট মার্কেটিং কি? ইন্টারনেট মার্কেটিং এর সুবিধাগুলো কি কি?

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *